রবিবার ২৩শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না ইলন মাস্কের, এবার বন্ধুর স্ত্রীর সঙ্গেই প্রেম!

প্রতিদিন ডেস্ক   |   সোমবার, ২৫ জুলাই ২০২২ | প্রিন্ট  

বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না ইলন মাস্কের, এবার বন্ধুর স্ত্রীর সঙ্গেই প্রেম!

টেসলার মালিক ইলন মাস্কের বিতর্ক যেন পিছু ছাড়ছে না। বন্ধুর স্ত্রীর সঙ্গেই না কি ‘প্রেম’ এই ধনকুবেরের। তাও আবার গুগলের সহ-প্রতিষ্ঠাতা সের্গেই ব্রিনের স্ত্রী নিকোল শানহানের সঙ্গে। দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে এমনটাই দাবি করা হয়েছে।

যদিও সেই খবর সাফ প্রত্যাখ্যান করেছেন ইলন মাস্ক। টুইট করে ওই প্রতিবেদনের খবর ‘ভিত্তিহীন’ বলে দাবি করেছেন তিনি। টুইটারে ইলন মাস্ক লিখেছেন, ‘গত তিন বছরে নিকোলকে মাত্র দু’বার দেখেছি। আমাদের যখন দেখা হয়েছিল, তখন আশেপাশে আরও অনেকেই ছিলেন। রোমান্টিক ব্যাপার নয়’।

ব্রিনের সঙ্গে তার বন্ধুত্ব এখনো অটুট রয়েছে, সে কথাও জানিয়েছেন তিনি। টুইটারে লিখেছেন, ‘সের্গেই ও আমি বন্ধু। গত রাতেও একটা পার্টিতে একসঙ্গে ছিলাম।’

২০২১ সালের ১৫ ডিসেম্বর স্ত্রী নিকোলের সঙ্গে সম্পর্ক ছেদ হয় ব্রিনের। তাদের কন্যা সন্তান যাতে দুজনেরই জিম্মায় থাকে, এ ব্যাপারে সে সময় ব্রিন আবেদনও করেন। তবে খবর চাওড় হয়েছে, টেসলার সিইওর সঙ্গে সের্গেই ব্রিনের স্ত্রীর প্রেমের জেরেই না কি স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেছেন তিনি।

ওই প্রতিবেদনে এটাও দাবি করা হয়েছে যে, চলতি বছরের শুরুতে এক পার্টিতে ব্রিনের কাছে ক্ষমাও চেয়েছেন ইলন মাস্ক।

জানা গেছে, ইলন ও ব্রিনের বন্ধুত্ব এতটাই গাঢ় ছিল যে, টেসলা গাড়ির উৎপাদন যখন শুরু হয়, সে সময় যাদের প্রথম গাড়ি দিয়েছিলেন মাস্ক, তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন ব্রিন।

আবার আর্থিক সংকটের সময় প্রকৃত বন্ধুর মতোই ইলন মাস্কের পাশে ছিলেন ব্রিন। ২০০৮ সালে মাস্ককে পাঁচ লাখ মার্কিন ডলার দিয়ে সাহায্যও করেন গুগলের এই সহ-প্রতিষ্ঠাতা।

ইলন মাস্ককে ঘিরে অবশ্য গুজনের শেষ নেই। এর আগেও তার প্রেমকাহিনী নিয়ে নানা গুঞ্জন শোনা যায়।

সূত্র: বিবিসি

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৪:২১ অপরাহ্ণ | সোমবার, ২৫ জুলাই ২০২২

nypratidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর...

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  

Editor : Naem Nizam

Executive Editor : Lovlu Ansar