শুক্রবার ১৪ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পেন্টাগনকে হটিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অফিস ভারতে!

বিশ্ব ডেস্ক   |   শুক্রবার, ২১ জুলাই ২০২৩ | প্রিন্ট  

পেন্টাগনকে হটিয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অফিস ভারতে!

বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু বাড়ির নাম বুর্জ খলিফা। দুবাইয়ের সেই বহুতলকে নিয়ে আলোচনার শেষ নেই। কিন্তু সবচেয়ে বড় অফিস? এত দিন সেই মুকুট ছিল আমেরিকার মাথায়।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় অফিস ভবন বলতে এতদিন সকলে জানতো পেন্টাগনকে। ভার্জিনিয়াতে বিশাল এলাকা জুড়ে বিস্তৃত আমেরিকার প্রতিরক্ষা দফতরের এই অফিস। কিন্তু ‌এ বার পেন্টাগনকে ছাপিয়ে বিশ্বের বৃহত্তম অফিস ভবনের তকমা ছিনিয়ে নিল ভারত। গুজরাটের একটি অফিস এই শিরোপা পেয়েছে।

গুজরাটের সুরাতে গড়ে উঠেছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অফিস। যার নাম সুরাত ডায়মন্ড বুর্স। হিরা তৈরির যাবতীয় কাজ এই অফিসে হয়।
সিএনএন-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, সুরাত ডায়মন্ড বুর্স একটি ১৫ তলা অফিস ভবন। ৩৫ একর এলাকা জুড়ে এই অফিসটি তৈরি করা হয়েছে। আকারে এটি পেন্টাগনের চেয়েও বড়।

সুরাত ডায়মন্ড বুর্সের নির্মাতারা জানিয়েছেন, অফিসটিতে মোট ৬,৬০০০০ বর্গমিটার কাজের জায়গা (ফ্লোর এরিয়া) রয়েছে। পেন্টাগনে কাজের জায়গা ৬,২০০০০ বর্গমিটার।

সুরাতের অফিসটিতে কর্মীর সংখ্যাও প্রচুর। পেন্টাগনে ২৬ হাজার কর্মচারী কাজ করেন। কিন্তু সুরাত ডায়মন্ড বুর্স প্রায় ৬৫ হাজার মানুষের কর্মস্থল।

২৬৮ মিটার উঁচু সুরাত ডায়মন্ড বুর্স গুজরাটের মুকুটে নতুন পালক যোগ করেছে। চলতি বছরেই এই অফিস ভবনটির উদ্বোধন করা হবে। শুরু হয়ে যাবে কাজও।

হিরার ব্যবসার জন্য সুরাত বরাবরই বিখ্যাত। খনি থেকে তুলে আনা হিরা কেটে এখানেই বাজারের উপযোগী করে তোলা হয়। তৈরি হয় হিরার গয়নাও। বিশ্বের ৯০ শতাংশ হিরে কাটা হয় এই সুরাতে। সেখানেই মাথা তুলেছে সবচেয়ে বড় অফিস। হিরা কাটা, পালিশ করা থেকে শুরু করে বাণিজ্যিক লেনদেন, সব কাজই হবে এই এক ছাদের তলায়।

এতদিন সুরাত থেকে হিরার ব্যবসার জন্য অনেককে মুম্বাই যাতায়াত করতে হত। সুরাত ডায়মন্ড বুর্সে এক ছাদের নীচে সব বন্দোবস্ত হওয়ায় সেই সমস্যা আর হবে না।

অফিস ভবনটি তৈরি করেছে এক বিখ্যাত স্থাপত্যনির্মাণ সংস্থা। প্রকল্পের সিইও মহেশ গাধভি জানিয়েছেন, সুরাত ডায়মন্ড বুর্স গুজরাতের হিরার বাজারকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবে।

অফিস ভবনটি তৈরি করতে খরচ হয়েছে ৩,২০০ কোটি রুপি। ১৫ তলার বহুতলে কর্মীদের যাতায়াতের সুবিধার জন্য রয়েছে মোট ১৩১টি লিফ্‌টের ব্যবস্থা।

নির্মাতাদের দাবি, এই অফিসটি ঠান্ডা রাখার জন্য প্রাকৃতিক উপায়ে বায়ু চলাচলের বন্দোবস্ত রয়েছে। ব্যবহৃত হয়েছে সৌরশক্তিও। পরিবেশ রক্ষার যাবতীয় নিয়ম মেনেই বহুতলটি তৈরি করা হয়েছে বলে দাবি নির্মাতাদের।

সুরাত ডায়মন্ড বুর্সের প্রশংসা করেছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তার মতে, সুরাতে হিরার ব্যবসা কেমন বৃদ্ধি পেয়েছে, তার উদাহরণ এই বিশাল অফিস ভবন।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় অফিসটির উদ্বোধন করবেন গুজরাটের ঘরের ছেলে নরেন্দ্র মোদি। আগামী নভেম্বর মাস থেকে এই অফিসে পুরোদমে কাজ শুরু হয়ে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

সূত্র : আনন্দবাজার।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১২:৩৬ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ২১ জুলাই ২০২৩

nypratidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  

Editor : Naem Nizam

Executive Editor : Lovlu Ansar