রবিবার ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কনজারভেটিভ পার্টির নেতা হিসেবে পদত্যাগ করেছেন বরিস জনসন

বিশ্ব ডেস্ক   |   বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২ | প্রিন্ট  

কনজারভেটিভ পার্টির নেতা হিসেবে পদত্যাগ করেছেন বরিস জনসন

নানান কেলেঙ্কারির মুখে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন নিজের ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ দলের নেতার পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন। দলটির নতুন নেতা ও নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন প্রক্রিয়া চলতি সপ্তাহেই শুরু হবে। সে পর্যন্ত তিনি প্রধানন্ত্রী পদে দায়িত্ব পালন করে যাবেন। বৃহস্পতিবার (৭ জুলাই) প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন ১০ নং ডাউনিং স্ট্রিটের বাইরে এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেন বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। খবর বিবিসি।

এর আগে ১০ নং ডাইনিং স্ট্রিটের এক মুখপাত্রের বরাতে বিবিসির খবরে বলা হয়, বরিস জনসন কনজারভেটিভ দলের নেতার পদ থেকে আজই (৭ জুলাই) করবেন। তবে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তিনি শরৎকাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করার ইচ্ছা পোষণ করেছেন।
ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন ১০ নং ডাউনিং স্ট্রিটের একটি সূত্রের বরাতে খবরে বলা হয়েছিল, পদত্যাগের সিদ্ধান্ত জানানোর আগে বরিস কনজারভেটিভ দলের ১৯২২ কমিটির চেয়ারম্যান স্যার গ্রাহাম ব্রাডির সঙ্গে কথা বলেন এবং সরে দাঁড়াতে সম্মত হন।
চলতি গ্রীষ্মেই কনজারভেটিভ দলের নেতা বাছাই করা হবে। আর অক্টোবরে অনুষ্ঠিত হবে দলটির সম্মেলন।
উল্লেখ্য, বরিস জনসন ২০১৯ সালে ব্রেক্সিট বাস্তবায়নের অঙ্গীকার করে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে জয়ী হন। কিন্তু গত দু’বছর ধরেই তিনি একের পর এক কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে দলের মধ্যে অনেকের আস্থা হারিয়েছেন।
১০ ডাউনিং স্ট্রিটের বাইরে জাতির উদ্দেশে দেওয়া বিবৃতিতে বরিস জনসন আরও বলেছেন যে দলের (কনজারভেটিভ পার্টি) নতুন নেতা ও নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন প্রক্রিয়া এখন স্পটতই পার্লামেন্টারি কনজারভেটিভ পার্টির ইচ্ছার উপর নির্ভর করছে। নতুন নেতা বাছাই প্রক্রিয়া এখনই শুরু হওয়া উচিত এবং এ লক্ষ্যে সময়সূচি আগামী সপ্তাহেই ঘোষণা করা হবে। এ ব্যাপারে স্যার গ্রাহাম ব্রাডির সঙ্গে তিনি একমত হয়েছেন বলেও বিবৃতিতে যোগ করেন বরিস।
বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী বরিস এও জানিয়েছেন যে তার গঠিত নতুন মন্ত্রিসভা ও তিনি নিজে পরবর্তী মন্ত্রিসভা ও প্রধানমন্ত্রী বাছাই না হওয়া পর্যন্ত নিজেদের দায়িত্ব পালন করে যাবে।
মূলত একজন এমপির বিরুদ্ধে যৌন অসদাচরণের অভিযোগকে ঘিরে বরিস জনসনের প্রধানমন্ত্রিত্ব এই সর্বশেষ সংকটে পড়েছে। কনজারভেটিভ পার্টির এমপি ক্রিস পিঞ্চারের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল, তিনি একজনের ওপর যৌন হামলা চালিয়েছেন। কিন্তু তার বিরুদ্ধে এ রকম অভিযোগ সম্পর্কে অবহিত হওয়ার পরও কেন প্রধানমন্ত্রী জনসন পিঞ্চারকে ডেপুটি চিফ হুইপ নিয়োগ করেনÑ এটি নিয়েই মূলত তোপের মুখে পড়েন তিনি।
এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বের প্রতি অনাস্থা জানিয়ে মঙ্গলবার (৫ জুলাই) সন্ধ্যায় দুই মন্ত্রীর নাটকীয় পদত্যাগ ব্রিটিশ রাজনীতিতে তোলপাড় সৃষ্টি করে। এরপরই একের পর এক মন্ত্রীরা পদত্যাগ করতে থাকেন বরিস জনসনের নেতৃত্বের প্রতি অনাস্থা জানিয়ে। শুধু তাই নয়, অনেকে রবিসকে পদত্যাগ করার জন্য খোলামেলাভাবে আহ্বানও জানান।
এদিকে, যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের পদত্যাগের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন দেশটির বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা স্যার কেয়ার স্টারমার। এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘অনেক আগেই’ এই সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত ছিল জনসনের।
বিবৃতিতে জনসনের এই সিদ্ধান্তকে দেশের জন্য ‘সুখবর’ উল্লেখ করে যুক্তরাাজ্যের বিরোধী নেতা আরও বলেন, ব্রিটেনের এখন প্রয়োজন ‘নতুন উদ্যমে’ সবকিছু শুরু করা।
স্যার স্টারমার বলেন, ‘টোরি দলের (কনজারভেটিভ পার্টি) সরকারের আমলে জীবনযাত্রার ব্যায় বৃদ্ধি গত কয়েক দশকের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে। ফলে দেশজুড়ে যে চরম বিশৃক্সখলা সৃষ্টি হয়েছে, দলটির বর্তমান নেতৃত্বের হাতে তার কোনো সমাধান আছে বলে মনে হয় না।’
‘১২ বছর ধরে তারা ক্ষমতায় আছে। আর এই সময়সীমায় যে ক্ষয়ক্ষতি তারা করেছে, তা গভীর ও সুদূরপ্রসারী।’ ‘টোরিদের সম্পর্কে আমাদের কিছু বলার নেই। আমরা চাই, সরকারে একটি যথাযথ পরিবর্তন আসুক।’ সেইসঙ্গে লেবার নেতা এও বলেছিলেন যে, সময়ক্ষেপণ না করে বরিস জনসনের উচিত হবে প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে সরে যাওয়া কারণ ডাউনিং স্ট্রিটের একটি সূত্রের বরাতে বিবিসি জানিয়েছিল যে কনজারভেটিভ দলের নেতার পদ থেকে পদত্যাগ করলেও অক্টোবর পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব চালিয়ে যেতে চান তিনি।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ৩:৪৪ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২

nypratidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর...

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  

Editor : Naem Nizam

Executive Editor : Lovlu Ansar