সোমবার ২৪শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভার্চুয়াল বিষয়ে ডক্টরেট ডিগ্রি পেলেন বাংলাদেশি প্রিয়লাল কর্মকার

লাবলু আনসার, যুক্তরাষ্ট্র   |   সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০২৩ | প্রিন্ট  

ভার্চুয়াল বিষয়ে ডক্টরেট ডিগ্রি পেলেন বাংলাদেশি প্রিয়লাল কর্মকার

করোনাকালীন লকডাউনেও ভার্চুয়ালে অনেক অফিস, কারখানা, ব্যবসা-বাণিজ্য সচল রাখা সম্ভব হয়েছিল। সশরীরে উপস্থিত না থেকেও প্রত্যাশিত সুফল পাওয়া যায়-সেটিও অনেক ক্ষেত্রেই প্রমাণিত হয়েছে। এমনকি শ্রেণীকক্ষে না যেয়েও ক্লাস নেয়া সম্ভব হয়েছে। করোনা মহামারী গোটা জনজীবনকে ধমকে দিতে পারেনি বলেই এখনও অনেক কিছু ভার্চুয়ালি সম্পাদিত করা হচ্ছে। এর ফলে অফিস পরিচালনা ব্যয় যেমন সাশ্রয় করা সম্ভব হচ্ছে, একইভাবে যানজটের ঝক্কিঝামেলা পোহাতে হচ্ছে না কর্মচারী-শ্রমিকদেরকে। ‘ম্যানেজমেন্ট ও গ্রুপ সাপোর্ট সিস্টেমের তাৎপর্যের একটি কোয়ালিটেটিভ ডিস্ক্রিপ্টিভ কেস স্টাডি’ শীর্ষক নয়া এই ব্যবস্থাপনা মানবতার সার্বিক কল্যাণে অপরিহার্য একটি অবলম্বন হতে পারে ইস্যুতে দীর্ঘ গবেষণা-পর্যবেক্ষণের পর ‘গ্রুপ সাপোর্ট সিস্টেম’ (জিএসএস) ডক্টরেট ডিগ্রি পেলেন রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসি মেট্রপলিটন এলাকার প্রিয়মুখ প্রিয়লাল কর্মকার। একইসাথে তিনি গত সপ্তাহেস ‘ইউনিভার্সিটি অব ফিনিক্স’ থেকে ডক্টর অব ম্যানেজমেন্ট (ডিএম),অর্গানাইজেশনাল লিডারশিপ, স্পেশালাইজড ইনফরমেশন সিস্টেম টেকনোলজি ডিগ্রি লাভ করেন।

উল্লেখ্য, এ বিষয়ে ডক্টরেট ডিগ্রি প্রদানের ঘটনা সারাবিশ্বে এটিও প্রথম এবং সে সৌভাগ্যবান ব্যক্তিটি বাংলাদেশি আমেরিকান হওয়ায় কম্যুনিটিতে আনন্দের বন্যা বইছে। এ প্রসঙ্গে ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজির চ্যান্সেলর ইঞ্জিনিয়ার আবুবকর হানিপ এ সংবাদদাতাকে বলেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বহুজাতি আর বহুভাষার সমাজে ইতিমধ্যেই মেধার গুণে অনেক প্রবাসী উচ্চপদে অধিষ্ঠিত হয়েছেন। অনেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন বড় কোম্পানি অথবা ব্যবসা-বাণিজ্যে। প্রিয়লাল কর্মকার তেমনি একটি প্রতিভাবান বাংলাদেশি আমেরিকান। আরো উল্লেখ্য, দীর্ঘ চার বছরের সাধনার পর পর তিনি ফিনিক্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তিনজন গবেষক ও গবেষণামূলক কমিটির সদস্য ড. ডোনোভান (চেয়ার), ড. রাইট (ইউনিভার্সিটি রিসার্চ মেথডলজিস্ট) এবং ড. গর্ডন (প্যানেল ভ্যালিডেটর)’র তত্ত্বাবধানে এই ডিগ্রি অর্জন করেন।

গত সপ্তাহে প্রায় এক ঘণ্টা স্থায়ী ওর‌্যাল ডিফেন্স প্রেজেন্টেশন হওয়ার পর কমিটির উপরোক্ত তিন সদস্যের সমালোচনামূলক প্রশ্নের জবাব দেন প্রিয়লাল কর্মকার। তারপরে রিসার্চ কমিটি একটি সংক্ষিপ্ত বিরতি নেন। এই বিরতির সময়, কমিটির সদস্যরা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেন, গবেষণামূলক এবং মৌখিক প্রতিরক্ষা স্কোর করেন এবং সবাই সেশনে পুনরায় যোগদানের পর, কমিটির চেয়ারম্যান ড. ডোনোভান ফলাফল ঘোষণা করেন। তিনি বলেন, ‘কমিটির সকল সদস্য এবং আমি উপসংহারে পৌঁছেছি যে প্রিয় তার ডিগ্রি প্রোগ্রাম এবং গবেষণার কাজ জুড়ে একটি চমৎকার এবং অসামান্য কাজ করেছেন।

গত কয়েক বছর ধরে তার সাথে আমার ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করার পর, তিনি তার সফল মৌখিক উপস্থাপনা এবং আমাদের প্রত্যাশা ছাড়িয়ে গেছেন। এবং আমাদের সকল প্রশ্নের সন্তোষজনক উত্তর দিয়েছেন।’ তিনি তখনই অভিনন্দন জানিয়ে উপস্থিত সকলের সামনে হাস্যোজ্জ্বল হয়ে ও খুব খুশি মনে ঘোষণা দিলেন, “কংগ্রেচুলেশন ড. কর্মকার!”

উল্লেখ্য ড. প্রিয়লাল কর্মকার বর্তমানে পেন্টাগনে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের প্রতিরক্ষা সচিবের সহকারীর প্ল্যান এন্ড পলিসি ডেভেলপমেন্টে একজন প্রোগ্রাম ম্যানেজার হিসাবে কর্মরত আছেন। এছাড়াও তিনি ইউএস মেরিন ভেটারেন (ইউএস মেরিনের এ্যাকটিভ সদস্য)। পেন্টাগনের বর্তমান অবস্থানের পাশাপাশি, গত ২৩ বছর ধরে তিনি ইউএস ফেডারেল গভর্মেন্টের বিভিন্ন সেক্টর যেমন, ডিফেন্স হেলথ এজেন্সি, নেভি এবং মেরিন কোর এর বিভিন্ন কমান্ড সহ অন্যান্য ফেডারেল সংস্থাগুলির জন্যও কাজ করেছেন। ফেনীর সন্তান প্রিয়লাল ইন্টারমিডিয়েট পাশের পর ডিভি লটারি জিতে ১৯৯৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রে আসেন। প্রবাস-জীবন শুরু করেছিলেন মিশিগানে মটর কোম্পানিতে কাজের মধ্য দিয়ে। এরপর তিনি জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞানে স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছেন।

উপরন্তু, পিএমআই থেকে প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট প্রফেশনাল সার্টিফিকেশন এবং অরাকল থেকে ‘অরাকল সার্টিফাইড প্রফেশনাল সার্টিফিকেশন’ অর্জন করেছেন। তিনি জাতীয় প্রতিরক্ষা পদক, প্রতিরক্ষা মেধাবী মাস্ট, নেভি ইউনিটের প্রশংসা, নেভি কলেজ থেকে প্রশংসার সনদ, আর্লিংটন কাউন্টি বোর্ড থেকে প্রশংসা এবং স্বীকৃতি, প্রতিরক্ষা স্বাস্থ্য সংস্থা থেকে বিশেষ স্বীকৃতি এবং এওয়ার্ড পেয়েছেন। এছাড়াও যথারীতি অর্জন করেছেন ৫, ১০, ১৫ ও ২০ বছরের ইউএস গভর্মেন্টের ‘ফেডারেল লেংথ অব সার্ভিস অ্যাওয়ার্ড।’

অত্যন্ত মেধাবী এবং কঠোর পরিশ্রমী প্রিয়লাল কখনো ভুলে যাননি বাঙালির শেকড়-সংস্কৃতিকে। তারই আলোকে ওয়াশিংটনস্থ অলাভজনক সংস্থা ‘প্রিয় বাংলা’র প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি, বাংলাদেশ সেন্টার ফর কমিউনিটি ডেভেলপমেন্ট-বাংলা স্কুলের সাবেক সভাপতি হিসেবে কম্যুনিটিতে অনেক খ্যাতি রয়েছে তার। বর্তমানে ফোবানা কার্যনির্বাহী কমিটির কোষাধ্যক্ষ হিসেবে কাজ করছেন।

তার সহধর্মীনিও ফেডারেল প্রশাসনে তথ্য-প্রযুক্তি সেক্টরে কাজ করছেন। এক কন্যা এবং এক পুত্রের সংসার নিয়ে প্রিয়লাল দম্পতির এ সাফল্যের সংবাদ জেনে ভার্জিনিয়াস্থ তার বাসায় এসে ফুলেল শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজীর চ্যান্সেলর ইঞ্জিনিয়ার আবুবকর হানিফ, বাংলাদেশি আমেরিকান আইটি প্রফেশনাল অর্গানাইজেশন (বাইটপো)’র সভাপতি কথা-সাহিত্যিক সামছুদ্দীন মাহমুদ, কবি মিজানুর রহমান প্রমুখ।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১:২৬ অপরাহ্ণ | সোমবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০২৩

nypratidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর...

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  

Editor : Naem Nizam

Executive Editor : Lovlu Ansar