সোমবার ১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রাশিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা ব্যর্থ হয়েছে : হাঙ্গেরি

বিশ্ব ডেস্ক   |   রবিবার, ২৪ জুলাই ২০২২ | প্রিন্ট  

রাশিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমাদের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা ব্যর্থ হয়েছে : হাঙ্গেরি

টানা পাঁচ মাস ধরে ইউক্রেনে সামরিক অভিযান চালাচ্ছে রাশিয়া। দীর্ঘ সময় ধরে চলা রুশ এই আগ্রাসন মোকাবিলায় ইউক্রেনকে সহযোগিতায় ইউরোপীয় দেশগুলোসহ পশ্চিমারা মস্কোর বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা ও অস্ত্র সহায়তা নিয়ে মাঠে নামলেও তাতে রাশিয়ার হামলার তীব্রতা কমেনি।

আর তাই পশ্চিমাদের আরোপিত নিষেধাজ্ঞা নিয়ে আগেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছিল। আর এবার রাশিয়ার বিরুদ্ধে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা ব্যর্থ হয়েছে বলে স্বীকার করে নিয়েছে হাঙ্গেরি। গত ২৩ জুলাই এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউক্রেনে আগ্রাসনের কারণে মস্কোর বিরুদ্ধে আরোপিত শাস্তিমূলক নিষেধাজ্ঞা কোনো কাজ করেনি বলে মন্তব্য করেছেন হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অরবান। আর তাই ইউক্রেনের যুদ্ধের বিষয়ে ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) নতুন কৌশল নেওয়া দরকার বলেও জানিয়েছেন তিনি।

রোমানিয়ায় এক বক্তৃতায় অরবান এসব কথা বলেন। সেখানে তিনি বলেন, ‘(রাশিয়ার বিরুদ্ধে) নতুন একটি কৌশল নেওয়া প্রয়োজন, যেখানে যুদ্ধে জয়ী হওয়ার পরিবর্তে… শান্তি আলোচনা এবং ভালো একটি শান্তি প্রস্তাবের খসড়া তৈরি করা যাবে।’

আলজাজিরা বলছে, টানা চতুর্থ মেয়াদের জন্য চলতি বছরের এপ্রিল মাসে হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন ভিক্টর অরবান। পূর্ব ইউরোপের এই দেশটি সামরিক জোট ন্যাটোর সদস্য হলেও প্রতিবেশী ইউক্রেনের যুদ্ধ থেকে হাঙ্গেরি দূরে থাকবে বলে বারবারই বলে এসেছেন তিনি।

অবশ্য ২০১০ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে ভিক্টর অরবান তার সবচেয়ে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন। দেশটিতে মুদ্রাস্ফীতি দুই অংকের ঘরে পৌঁছে গেছে, হাঙ্গেরীয় মুদ্রা ফরিন্ট দুর্বল হয়েছে। এছাড়া গণতান্ত্রিক মান নিয়ে ব্রাসেলসের সাথে বিরোধের কারণে ইইউ তহবিল এখনও আটকে আছে।

অরবান এর আগে বলেছিলেন, রাশিয়ান গ্যাস আমদানির ব্যাপারে ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞা বা সীমাবদ্ধতা সমর্থন করতে ইচ্ছুক নয় হাঙ্গেরি। কারণ এটি তার দেশের অর্থনীতিকে দুর্বল করবে। হাঙ্গেরি মূলত রাশিয়ান গ্যাস আমদানির ওপর অনেক বেশি নির্ভর করে থাকে।
শনিবার নিজের বক্তৃতায় ভিক্টর অরবান বলেন, ইউক্রেনের বিষয়ে পশ্চিমা দেশগুলোর কৌশলটি চারটি স্তম্ভের ওপর প্রস্তুত করা হয়েছে। সেগুলো হচ্ছে- ইউক্রেন ন্যাটোর অস্ত্র দিয়ে রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধে জিততে পারে, (পশ্চিমাদের) নিষেধাজ্ঞা রাশিয়াকে দুর্বল করবে এবং মস্কোর নেতৃত্বকে অস্থিতিশীল করবে, আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলো ইউরোপের চেয়ে রাশিয়ার বেশি ক্ষতি করবে এবং গোটা বিশ্ব ইউরোপের সমর্থনে সক্রিয় হবে।

তবে অরবান বলছেন, রাশিয়াকে নিয়ে পশ্চিমাদের এসব কৌশল ব্যর্থ হয়েছে। কারণ ইউরোপের দেশগুলোর সরকার ‘ডোমিনোর মতো’ ভেঙে পড়ছে এবং জ্বালানির দাম বেড়ে গেছে। আর তাই এখন নতুন কৌশল নেওয়া প্রয়োজন।

অরবান তার সমর্থকদের বলেন, ‘আমরা এমন একটি গাড়িতে বসে আছি যার চারটি টায়ারই পাংচার হয়ে গেছে: এটা একেবারে পরিষ্কার যে এইভাবে যুদ্ধ জেতা যাবে না।’

তিনি বলেন, ইউক্রেন এভাবে কখনোই যুদ্ধে জিততে পারবে না। কারণ রাশিয়ান সেনাবাহিনীর অপ্রতিরোধ্য আধিপত্য রয়েছে। আর তাই যুদ্ধের অবসান ঘটাতে রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রকে আলোচনায় বসার আহ্বান জানান অরবান।

তিনি আরও বলেন, ‘শুধুমাত্র রাশিয়া-মার্কিন আলোচনাই চলমান এই সংঘর্ষের অবসান ঘটাতে পারে। কারণ রাশিয়া (নিজের) নিরাপত্তার নিশ্চয়তা চায়, আর সেটি শুধুমাত্র ওয়াশিংটনই দিতে পারে।’ এছাড়া মস্কো আক্রমণ শুরুর আগে রাশিয়ার নিরাপত্তা উদ্বেগ উপেক্ষা করার জন্য পশ্চিমা নেতাদেরও সমালোচনা করেন অরবান। তিনি বলেন, ‘মার্কিন প্রেসিডেন্ট (ডোনাল্ড) ট্রাম্প এবং জার্মান চ্যান্সেলর (অ্যাঞ্জেলা) মেরকেলের থাকলে, এই যুদ্ধ কখনোই ঘটতো না।’

 

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১:৩৯ অপরাহ্ণ | রবিবার, ২৪ জুলাই ২০২২

nypratidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর...

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

রবি সোম মঙ্গল বু বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১৩
১৫১৬১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
৩০৩১  

Editor : Naem Nizam

Executive Editor : Lovlu Ansar