বৃহস্পতিবার ২০শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নিউইয়র্কে ‘বাংলাদেশ ডে প্যারেড’ : মান বাঁচিয়েছেন পুলিশ অফিসাররা

লাবলু আনসার, যুক্তরাষ্ট্র   |   সোমবার, ২৭ মে ২০২৪ | প্রিন্ট  

নিউইয়র্কে ‘বাংলাদেশ ডে প্যারেড’ : মান বাঁচিয়েছেন পুলিশ অফিসাররা

২৫ বছর পর ২৬ মে আবারো নিউইয়র্কে অনুষ্ঠিত হলো বহুল প্রত্যাশিত ‘বাংলাদেশ ডে প্যারেড’। তবে আয়োজকরা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম না হওয়ায় প্যারেড পূর্ববর্তী শুভেচ্ছা-বক্তব্য পর্বটি হ-য-ব-র-ল অবস্থায় পড়েছিল। পরপর তিন দফা আয়োজক সংগঠনের প্রধান শাহ শহিদুল হক সাঈদকে প্যারেড-কর্মসূচি স্থগিতের হুমকি পর্যন্ত দিতে হয়েছে ‘উড়ে এসে জুড়ে বসা’ লোকজন মঞ্চ থেকে না সরায়।

‘ওয়ার্ল্ড হিউম্যান রাইটস ডেভেলপমেন্ট’র উদ্যোগে নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে ৬৯ স্ট্রিট থেকে ৩৭ এভিনিউর ওপর দিয়ে ৮২ স্ট্রিট পর্যন্ত বিস্তৃত এ প্যারেডের মধ্যমণি ছিলেন সিটি মেয়র এরিক এডামস। মেয়র তার বক্তব্যে বাংলাদেশিদের সততা-কর্মনিষ্ঠা এবং মেধার প্রশংসা করে বলেন, আমি সেই কম্যুনিটির সাপোর্ট পাওয়ায় নিজেকে ধন্য মনে করি এবং সামনের দিনগুলোতে বাংলাদেশি আমেরিকানদের কল্যাণে সব ধরনের সহযোগিতা অব্যাহত রাখার অঙ্গিকার করছি। বিপুল করতালির মধ্যে প্যারেডের মঞ্চে মেয়র এডামসকে উপস্থাপন করেন নিউইয়র্ক সিটির সর্বোচ্চ প্রশাসনিক পদে (চিফ এডমিনিস্ট্রেটিভ অফিসার) অধিষ্ঠিত মীর বাশার। এ সময় তিনি মেয়রকে ‘আইকন অব দ্য প্যারেড’র ব্যাজ পড়িয়ে দেন। এবং প্যারেডের পক্ষ থেকে আহবায়ক শাহনেওয়াজ মেয়রকে বিশেষ সম্মাননা স্মারক প্রদান করার আগে প্যারেডের মার্শাল বিএনপি নেতা গিয়াস আহমেদ বলেন, এরিক এডামস নানাবিধ কাজের মধ্যদিয়ে বাংলাদেশিদের হৃদয় জয় করেছেন। তার মতো মেয়রের সান্নিধ্য পেয়ে আমরা সকলে অভিভূত। এর আগে প্যারেড কমিটির চেয়ারপার্সন শাহ শহিদুল হক সাঈদ, ডেমক্র্যাট ফাহাদ সোলায়মান, ডেমক্র্যাটিক পার্টির ডিস্ট্রিক্ট লিডার অ্যাট লার্জ অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী, আবাসন ব্যবসায়ী নুরুল আজিম, বিএনপি নেতা কাজী আজম, জালালাবাদ এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট বদরুল খান, প্রেসিডেন্সিয়াল অ্যান্ড ন্যাশনাল হেল্্থকেয়ার চ্যাম্পিয়ন আব্দুল কাদের শিশির, স্টেট সিনেটর জেসিকা গঞ্জালেজ, কুইন্স বরোর ডেপুটি প্রেসিডেন্ট ইবনি ইয়ং এবং বাংলাদেশী আমেরিকান পুলিশ এসোসিয়েশনের শীর্ষ কর্মকর্তারা বক্তব্য দেন।

প্যারেডে অংশগ্রহণকারীর সংখ্যা প্রত্যাশার পরিপূরক না হওয়ায় চিত্রনায়িকা মওসুমী তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে হতাশার সুরে বলেন, বাংলাদেশের পতা

কা নিয়ে আমরা একত্রিত হয়েছি প্যারেডের এ সুন্দর আয়োজনে। এই নিউইয়র্কে অনেক প্রবাসী দেখি নানা অনুষ্ঠানে। কিন্তু দেশের নামে কোন আয়োজনে সবাই কেন পিছিয়ে থাকে, সেটা অনেক খারাপ লাগে। আশা করি এর পরের বার যখন আয়োজন হবে সবাই আসবেন, সে আমন্ত্রণ রইলো। এবং এটা আমাদের দায়িত্ব। আমরা বাংলাদেশিরা এখানে আছি এবং কম্যুনিটি হিসেবে কত বড় তা সবাইকে দেখানো উচিত।

উল্লেখ্য, প্যারেডের মান বাঁচিয়েছেন নিউইয়র্ক পুলিশ ডিপার্টমেন্টে বাংলাদেশি অফিসাররা। সিটি পুলিশের চৌকষ দুটি ঘোড়াসহ ৫ শতাধিক পুলিশ অফিসারের উপস্থিতি না ঘটলে কম্যুনিটি হিসেবে বাংলাদেশিরা ভিন্ন কম্যুনিটির সামনে হাসির খোড়াক হতেন বলে অনেকে মন্তব্য করেছেন। কারণ এবারই প্রথম জ্যাকসন হাইটসের ব্যস্ততম সড়ক বন্ধ করে কঠোর নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছিল প্যারেডের জন্যে। প্যারেডে অংশগ্রহণকারি প্রবাসীর অর্ধেকই ছিলেন পোশাক পরিহিত পুলিশ অফিসাররা। সিটির বিভিন্ন সেক্টরে কর্মরত বাংলাদেশিরাও নিজ নিজ ব্যানারসহ এসেছিলেন। সে তুলনায় আঞ্চলিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক-পেশাজীবী সংগঠনের অস্তিত্ব ছিল না বললে অত্যুক্তি হবে না। এ প্যারেডে বিএনপি সমর্থিত মুক্তিযোদ্ধা দল এবং আওয়ামী লীগ সমর্থিত মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের ব্যানার পাশাপাশি থাকায় কম্যুনিটিভিত্তিক ঐক্যের একটি ঘটনা দৃশ্যমান হয়েছে।

parade-3

লাল সবুজের পতাকা বহন করা হলেও প্যারেডের আয়োজকরা একটি বারের জন্যেও বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ করেননি, জয় বাংলা স্লোগান দূরের কথা। এমনি খরার মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন দেওয়ান তার সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদ, সম্ভ্রম হারানো দু’লাখ মা-বোন এবং বাঙালির মুক্তিসংগ্রামের মহানায়ক জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গভীর শ্রদ্ধায় স্মরণ করেন এবং জয় বাংলা

স্লোগানে বক্তব্য শেষ করেন। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ১৯৯৮ সালে অর্থাৎ ২৫ বছর আগে কুইন্সের লং আইল্যান্ড সিটির কুইন্স ব্রিজ থেকে ২১ স্ট্রিট ধরে সর্বশেষ একটি প্যারেডের আয়োজন করেছিল ‘বাংলাদেশ স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন’। দ্য সিটি কলেজের আড়াই লক্ষাধিক শিক্ষার্থীর প্রতিনিধিত্বকারি ‘ইউনিভার্সিটি স্টুডেন্ট সিনেট’র নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মিজানুর রহমান বিশ্বাসের উদ্যোগে সে প্যারেডে গ্র্যান্ড মার্শাল ছিলেন সে সময়ে ওয়াশিংটনে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত কে এম শিহাবউদ্দিন। সেই প্যারেড মাইলখানেক পথ অতিক্রম করে এস্টোরিয়ার রেইনি পার্কে জড়ো হয় এবং সেখানে বাংলাদেশি খাবার আর পন্যের জমজমাট মেলা বসেছিল। এবারের প্যারেড শেষে সে ধরনের কোনো মেলা ছিল না। তবে প্যারেড শুরু হবার আগে মূলমঞ্চে দেশের গান পরিবেশন করেছেন বিন্দু কণ্যা এবং শাহ মাহবুব।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১২:০৬ অপরাহ্ণ | সোমবার, ২৭ মে ২০২৪

nypratidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  

Editor : Naem Nizam

Executive Editor : Lovlu Ansar