রবিবার ২৩শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জাওয়াহিরির চিকিৎসক থেকে আল কায়েদা নেতা হওয়ার গল্প

প্রতিদিন ডেস্ক   |   মঙ্গলবার, ০২ আগস্ট ২০২২ | প্রিন্ট  

জাওয়াহিরির চিকিৎসক থেকে আল কায়েদা নেতা হওয়ার গল্প

বিশ্বে আল কায়েদার নেতা হিসেবে পরিচিত ছিলেন আফগানিস্তানে মার্কিন ড্রোন হামলায় সদ্য নিহত আয়মান আল জাওয়াহিরি। একজন অনমনীয় ও লড়াকু ব্যক্তিত্ব হিসেবে খ্যাতি থাকা সত্ত্বেও তিনি বিশ্বজুড়ে আল কায়েদাকে শক্তভাবে পরিচালনা করতে পারেননি। তবে তিনি হালও ছাড়েননি। তার নেতৃত্বে আরব বসন্ত থেকে এশিয়া, আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে বেশ কয়েকটি দেশে অস্থিতিশীল কিছু কর্মকাণ্ড চালিয়েছে আল কয়েদা।

একজন ইসলামি জঙ্গি হিসেবে জাওয়াহিরির উত্থান কয়েক দশক আগে। বিশ্ববাসী প্রথম তার নাম শুনেছিল ১৯৮১ সালে মিসরের প্রেসিডেন্ট আনোয়ার সাদাতকে হত্যার পর যখন তিনি আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়েছিলেন। সাদা পোশাক পরা জাওয়াহিরি চিৎকার করে বলেছিলেন, ‘আমরা ত্যাগ স্বীকার করছি এবং ইসলামের বিজয় না হওয়া পর্যন্ত আরও ত্যাগ স্বীকার করার জন্য প্রস্তুত আছি।’

পরে আদালত জাওয়াহিরিকে অবৈধ অস্ত্র রাখার দায়ে তিন বছরের কারাদণ্ড দিয়েছিলেন এবং মূল অভিযোগ থেকে মুক্তি দিয়েছিলেন।

জাওয়াহিরি ছিলেন একজন প্রশিক্ষিত সার্জন। তিন বছর কারাভোগ করার পর মুক্তি পেয়ে তিনি মিসর থেকে পাকিস্তানে চলে যান। সেখানে তিনি সোভিয়েত (তৎকালীন) বাহিনীর সঙ্গে যুদ্ধরত আফগানিস্তানে আহত ইসলামি মুজাহিদীন গেরিলাদের চিকিৎসার জন্য রেড ক্রিসেন্টের সঙ্গে কাজ করতে শুরু করেন।

ওই সময়েই বিন লাদেনের সঙ্গে পরিচয় হয় তার। সৌদি ধনকুবের ও আল কায়েদার শীর্ষ নেতা ওসামা বিন লাদেন তখন আফগানিস্তানে যুদ্ধ করছিলেন।

এর পর ১৯৯৩ সালে মিসরে ইসলামি জিহাদের নেতৃত্ব নিজ কাঁধে তুলে নেন আয়মান আল জাওয়াহিরি। তিনি মিসরের তৎকালীন সরকারকে উৎখাত করে বিশুদ্ধ ইসলামি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য নানা তৎপরতা শুরু করেন।

১৯৯৫ সালের জুনে আদ্দিস আবাবায় তার নেতৃত্বে মিসরের প্রেসিডেন্ট হোসনি মোবারককে হত্যাচেষ্টা হয়। শুধু তাই নয়, একই সময়ে তিনি পাকিস্তানের ইসলামাবাদে মিসরীয় দূতাবাসে হামলার নির্দেশ দিয়েছিলেন। সেখানে জঙ্গিদের হামলায় ১৬ জন নিহত হয়েছিল।

১৯৯৯ সালে মিসরের আদালত জাওয়াহিরির অনুপস্থিতিতে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়। তত দিনে তিনি অবশ্য আল কায়েদার গুরুত্বপূর্ণ নেতা হয়ে উঠেছিলেন। তার পর থেকেই জাওয়াহিরিকে খোঁজা হচ্ছিল। ধারণা করা হচ্ছিল, তিনি আফগানিস্তানের দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চলে লুকিয়ে আছেন।

চলতি বছরে মার্কিন কর্মকর্তারা নিশ্চিত হয়েছেন, তিনি স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে কাবুলের একটি বাড়িতে স্থানান্তরিত হয়েছেন। মার্কিন কর্মকর্তারা জানান, স্থানীয় সময় রোববার তিনি তার বাড়ির বারান্দায় বের হলে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএর ছোড়া ড্রোন হামলায় তিনি নিহত হন।

জাওয়াহিরি মাঝে মাঝে অনলাইন ভিডিও বক্তৃতার মাধ্যমে জঙ্গিদের উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা করতেন। কিন্তু তার মধ্যে বিন লাদেনের মতো ক্যারিশমাটিক গুণ ছিল না। তবে তিনি আল কায়েদার বেশ কয়েকটি বড় বড় হামলার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ২০০১ সালে টুইন টাওয়ার হামলার পরিকল্পনার সঙ্গেও জড়িত ছিলেন তিনি। সে হামলায় তিন হাজার মানুষ নিহত হয়েছিলেন।

কেনিয়া ও তানজানিয়ায় মার্কিন দূতাবাসে ১৯৯৮ সালের বোমা হামলায় তাকে অভিযুক্ত করা হয়েছিল। এফবিআইয়ে মোস্ট ওয়ান্টেড তালিকায় ছিল জাওয়াহিরির নাম। তাকে ধরিয়ে দেওয়ার জন্য ২৫ মিলিয়ন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করা হয়েছিল।

১৯৫১ সালে মিসরের কায়রোর এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মেছিলেন আইমান আল জাওয়াহিরি। তার দাদা ছিলেন ইসলাম ধর্মের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মসজিদ আল আজহারের গ্র্যান্ড ইমাম।

জাওয়াহিরি বেড়ে উঠেছিলেন কায়রোর দক্ষিণের জেলা মাদিতে। তার বাবা ছিলেন ফার্মাকোলজির অধ্যাপক। মাত্র ১৫ বছর বয়সেই তিনি আল কায়েদার দিকে ঝুঁকে পড়েছিলেন।

জাওয়াহিরি মিসরীয় লেখক সাইয়্যিদ কুতুবের বিপ্লবী চিন্তাধারা দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন। সাইয়্যিদ কুতুব ছিলেন একজন চরমপন্থি ইসলামি নেতা। ১৯৬৬ সালে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছিল।

১৯৭০ সালে কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়ে মেডিসিন অনুষদে পড়াশোনা করতেন জাওয়াহিরি। সেই সময়ে তার সঙ্গে পড়ালেখা করেছেন এমন একজন ব্যক্তি বলেছেন, ‘জাওয়াহিরি ছিল প্রাণবন্ত যুবক। সে সিনেমা দেখত, গান শুনত, বন্ধুদের সঙ্গে রসিকতা করত। সে কী করে পরে উগ্রপন্থি জঙ্গি হয়ে গেল, তা সত্যিই এক বিস্ময়!’

প্রসঙ্গত, ওসামা বিন লাদেন নিহত হওয়ার পর জঙ্গি সংগঠন আল কায়েদার প্রধান সংগঠক ও কৌশলবিদ হয়েছিলেন আয়মান আল জাওয়াহিরি। তিনি মূলত ওসামা বিন লাদেনেরই স্থলাভিষিক্ত হয়েছিলেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সোমবার বলেছেন, আল কায়েদার এই শীর্ষ নেতা আফগানিস্তানের কাবুলে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএর ড্রোন হামলায় নিহত হয়েছেন।
তথ্যসূত্র : আলজাজিরা, বিবিসি ও এফবিআই ওয়েবসাইট।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১২:৫৪ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ০২ আগস্ট ২০২২

nypratidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  

Editor : Naem Nizam

Executive Editor : Lovlu Ansar