বৃহস্পতিবার ২৩শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ট্রাম্পের অপরাধ তদন্তে স্পেশাল কাউন্সেল নিয়োগ দিল বাইডেন প্রশাসন

লাবলু আনসার, যুক্তরাষ্ট্র   |   শনিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২২ | প্রিন্ট  

ট্রাম্পের অপরাধ তদন্তে স্পেশাল কাউন্সেল নিয়োগ দিল বাইডেন প্রশাসন

মার-এ-লাগোর বাসা থেকে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ডক্যুমেন্ট উদ্ধার এবং ৬ জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলে জঙ্গি হামলায় সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে চলমান তদন্তে গভীর পর্যবেক্ষণ করার জন্যে হ্যাগে অবস্থিত ‘আন্তর্জাতিক যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনাল’র খ্যাতনামা আইনজীবী জ্যাক স্মীথকে নিয়োগের ঘোষণা দিলেন বাইডেনের আইন মন্ত্রী তথা অ্যাটর্নি জেনারেল মেরিক গারল্যান্ড। ১৮ নভেম্বর ‘বিশেষ কাউন্সেল’ নিয়োগের এ ঘোষণা প্রদান করার পর মার্কিন রাজনীতিতে সামনের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের হিসাব-নিকাশে নতুন মোড় নিয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০২৪ সালের নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট পদে ট্রাম্প প্রতিদ্বন্দ্বিতার ঘোষণার তিনদিনের মাথায় তার বিরুদ্ধে গুরুতর অপরাধ সংঘটনের চলমান তদন্তে মনিটরিংয়ের জন্যে জ্যাক স্মীথকে নিয়োগ করা হলো ‘স্পেশাল কাউন্সেল’ হিসেবে। অ্যাটর্নি জ্যাক স্মীথ হ্যাগে যোগদানের আগে বেশ ক’বছর যুক্তরাষ্ট্র ফেডারেল কোর্টে পেশাগত দায়িত্ব পালন করেছেন বিশেষ কৃতিত্বের সাথে।

বিচার বিভাগে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে অ্যাটর্নি জেনারেল গারল্যান্ড বলেন, সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সামনের নির্বাচনে নিজের প্রার্থিতা ঘোষণা করেছেন। একইসাথে বর্তমান প্রেসিডেন্ট বাইডেনও পুনরায় প্রার্থী হবার মনোবাঞ্ছা পোষণ করেছেন। তাই জনস্বার্থে আমাকে স্পেশাল কাউন্সেল নিয়োগ করতে হলো। অ্যাটর্নি জেনারেল অবশ্য ক্যাটাগরিকেলি অস্বীকারের চেষ্টা করেছেন যে, চলমান তদন্তে ট্রাম্পকে অভিযুক্ত করার অভিপ্রায়ে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। গারল্যান্ড বলেন, ‘এটি সঠিক একটি পদক্ষেপ যা করা দরকার ছিল। বিশেষ একটি পরিস্থিতি তৈরী হওয়ায় স্পেশাল কাউন্সেল নিয়োগের প্রয়োজন দেখা দিয়েছিল। এবং অ্যাটর্নি স্মীথ হচ্ছেন সঠিক একজন ব্যক্তি যার মাধ্যমে সুবিচারের পথ নিশ্চিত হবে।’

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের নির্বাচনের ফলাফল অস্বীকার করে ট্রাম্প তার উগ্রপন্থি সমর্থকদের লেলিয়ে দেন ক্যাপিটল হিলে। উদ্দেশ্য ছিল, সংবিধানের বিধি অনুযায়ী কংগ্রেসের ফলাফল ঘোষণাকে থামিয়ে দেয়া। সেই জঘন্য হামলায় পুলিশের কয়েকজন সদস্য নিহত হয়েছেন। গোটা জনজীবনে ভীত-সন্ত্রস্ত অবস্থা তৈরী করা হয়। ইউএস সিনেট এবং হাউজের সকল সদস্য নিরাপত্তাহীন হয়ে পড়েছিলেন কয়েক ঘণ্টার জন্যে। সেই তাণ্ডবকে যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রের ওপর হামলা হিসেবে বলা হচ্ছে। এ নিয়ে হাউজে একটি কমিটির মাধ্যমে তদন্ত শুরু হয়েছে। অপরদিকে, অতি সম্প্রতি ফ্লোরিডায় ট্রাম্পের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে এফবিআই এমন সব ডক্যুমেন্ট উদ্ধার করেছে যা রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তার পরিপন্থি।

সে বিষয়েও তদন্ত চালাচ্ছে বিচার বিভাগ। মধ্যবর্তী নির্বাচনে কংগ্রেসের নিম্নকক্ষের নিয়ন্ত্রণ রিপাবলিকানদের কাছে যাওয়ায় কংগ্রেসের সেই তদন্ত থামিয়ে দিতে পারেন সাবেক প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। সেদিকে নজর রেখেই ‘স্পেশাল কাউন্সেল’ নিয়োগ করা হলো বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা উল্লেখ করেন। এ পদক্ষেপে অখুশী মহল যুক্তি দেখাচ্ছেন যে, ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিলারি ক্লিন্টনের বিরুদ্ধেও তদন্ত চলে সরকারি কাজকর্ম ব্যক্তিগত ই-মেলে সম্পাদনের জন্যে। সে সময় স্পেশাল কাউন্সেল নিয়োগ করা হয়নি বিদায়ী প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা কর্তৃক। এখন কেন করা হলো?

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১২:৪৭ অপরাহ্ণ | শনিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২২

nypratidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর...

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  

Editor : Naem Nizam

Executive Editor : Lovlu Ansar