সোমবার ২৪শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

উপমহাদেশের হিন্দু মুসলমান

তসলিমা নাসরিন   |   বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২ | প্রিন্ট  

উপমহাদেশের হিন্দু মুসলমান

১. নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস এবং কলেজের এক ছাত্রকে পুলিশের উপস্থিতিতে নির্বিঘ্নে ছেঁড়া জুতোর মালা পরালো যুক্তিহীন বুদ্ধিহীন ধর্মান্ধ গোষ্ঠী। দোষ নাকি ছাত্রটির, সে নাকি ভারতের নূপুর শর্মাকে সমর্থন করেছিল। অধ্যক্ষের কী দোষ? তিনি ছাত্রটিকে তাঁর রুমে আশ্রয় দিয়েছিলেন যখন তাকে আক্রমণ করতে উন্মত্ত লোকেরা ভিড় করেছিল। উন্মত্তরা অধ্যক্ষের মোটরসাইকেল পোড়ানোর উৎসব করলো কলেজ ক্যাম্পাসেই। অধ্যক্ষ পুলিশ ডেকেছিলেন পরিস্থিতি সামলাতে। পুলিশ এসে সবকিছু দেখে শুনে অধ্যক্ষ আর ছাত্রকে রুম থেকে বের করে বাইরে নিয়ে এলেন যেন অপরাধীরা অধ্যক্ষ আর ছাত্রর গলায় নিরাপদে এবং নিশ্চিন্তে ছেঁড়া জুতোর মালা পরিয়ে অসম্মান, অপমান, অপদস্থ করতে পারে? ধর্মান্ধ ছাত্র-জনতা যতটা না দোষী, তার চেয়ে, আমার মনে হয়, দোষী ওই পুলিশেরা।

লক্ষ্য করেছি, দেশের আনাচে কানাচে যে শিক্ষকরা উগ্রপন্থীদের আক্রমণের শিকার হচ্ছেন, সেই শিক্ষকদের অধিকাংশই হিন্দু সম্প্রদায়ের। মনে হচ্ছে ওদের তারা আর শিক্ষক পদে দেখতে চাইছে না। হিন্দুদের জমি যেমন দখল করার মতলব আঁটে, তেমন তাঁদের পদগুলোও দখল করার মতলব আঁটছে। শ্যামল কান্তি ভক্ত, আমোদিনী পাল, হৃদয় মন্ডলের তালিকায় যোগ হলো স্বপন কুমার বিশ্বাসের নাম।

এই অন্যায় ঘটে চলেছে দেশের সর্বত্র। দেশটি কি তাহলে হতে চলেছে ১০০ ভাগ মুসলিমের দেশ? আশঙ্কা হয় হয়তো একদিন দেশটি আস্ত একটি আফগানিস্তান হয়ে যাবে। নাচ গান নাটক সিনেমা সব বন্ধ হবে। নারীবিদ্বেষী, গণতন্ত্রবিরোধী, বাকস্বাধীনতাবিরোধী এক পাল মূর্খ ধর্মান্ধ ক্ষমতায় আরোহণ করবে। শরিয়া আইনে দেশ চলবে। মেয়েদের ইস্কুল কলেজ বন্ধ হবে, চাকরি বাকরি ব্যবসা বাণিজ্য বন্ধ হবে। বোরখা বাধ্যতামূলক হবে। পাবলিক প্লেসে তলোয়ারের এক কোপে অপরাধীর ধড় থেকে মু- উড়িয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হবে। ধর্মীয় অনুভূতিতে কেউ আঘাত দিলে পাথর ছুঁড়ে হত্যা করা হবে। তখন কেমন কাটবে সাধারণ শান্তিপ্রিয় মুসলমানের জীবন? বর্তমানই নির্মাণ করে ভবিষ্যৎ।
স্বপন কুমার বিশ্বাসকে লাঞ্ছিত করার কিছুদিন পরেই আশুলিয়া স্কুলের এক ছাত্র সেই স্কুলেরই শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে ক্রিকেট খেলার স্টাম্প দিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলেছে। এই হত্যার পেছনে নূপুর শর্মাকে সমর্থন করার কোনও ব্যাপার নেই, আছে ছাত্রটিকে শাসন করার ব্যাপার। স্কুলের কোনও এক ছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করেছিল বলে শিক্ষক উৎপল কুমার সরকার, যিনি স্কুলের শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণের দায়িত্বেও ছিলেন, ছাত্রটিকে শাসন করেছিলেন। সেই শাসনের উত্তর হত্যাকান্ড। এখন প্রশ্ন হলো, স্কুলের এক শিক্ষককে, যাঁকে সম্মান করার নিয়ম, তাঁকে অবলীলায় হামলা করার সাহস কেন পেয়েছিল ছাত্রটি? শিক্ষক হিন্দু ছিলেন বলেই কি? হিন্দুদের আঘাত করলে খুব একটা অন্যায় করা হয়েছে বলে মনে করা হয় না বলে? মুসলমান সমাজে হিন্দুবিদ্বেষ দিন দিন বাড়ছে বলেই কি ছাত্রটির পক্ষে এই ঘৃণ্য কাজ করা সম্ভব হয়েছে? ছাত্রটি স্কুলের মালিকপক্ষের আত্মীয়। সুতরাং কোনও রকম শাস্তিই হয়তো তাকে পেতে হবে না।

কিন্তু আশঙ্কা করছি, এ ঘটনাগুলো দেশের নানা প্রান্তের নানা স্কুল কলেজের ছাত্রদের উদ্বুদ্ধ করবে হিন্দু শিক্ষকদের অপমান করতে, অপদস্থ করতে, অসম্মান করতে, অকারণ আক্রমণ করতে। কিছু প্রতিবাদ আর মানববন্ধন ঘটছে বটে শিক্ষকদের লাঞ্ছনা করার বিরুদ্ধে, কিন্তু ভালো কাজের চেয়ে মন্দ কাজই মানুষকে বেশি উৎসাহিত করে, মন্দই বেশি সংক্রামক।

২. নড়াইলের ঘটনার কিছু দিন পরেই ভারতের উদয়পুরে নৃশংস এক হত্যাকান্ড ঘটলো। মোহাম্মদ রিয়াজ এবং গিয়াস মোহাম্মদ নামের দুই রাজস্থানী মুসলমান জনবহুল উদয়পুর বাজারে কানাইয়া লাল নামের এক দরজির দোকানে পোশাক বানানোর অজুহাতে ঢুকে তাকে গলা কেটে হত্যা করেছে। হত্যাকান্ডের ভিডিও করেছে। পরে বাড়ি ফিরে সোশ্যাল মিডিয়ায় সেই ভিডিও আপলোড করেছে এবং হাস্যোজ্জ্বল মুখে ছুরি দেখিয়েছে যে ছুরি দিয়ে কানাইয়া লালের কণ্ঠদেশ চিরেছে তারা, খুব গর্ব করেই বলেছে তাদের নবীর জন্য তারা বাঁচতে যেমন পারে, মরতেও তেমন পারে। কানাইয়া লালের দোষ কী? দোষ, সে নাকি নূপুর শর্মাকে সমর্থন করেছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়, যে নূপুর শর্মা এক টেলিভিশন বিতর্কে মহানবীকে নিয়ে কটূক্তি করেছিলেন। সে কারণেই তাকে বাঁচতে দেয়নি তরুণ দুই জিহাদি।

ভারতের মুসলমানদের প্রায়ই আক্রমণ করে উগ্র হিন্দুত্ববাদীরা। এ সময় আইসিসের মতো হত্যাকান্ডের ভিডিও আপলোড করে ঘোষণা করে দেওয়া যে তারা মুসলমান এবং তারা হত্যা করেছে এক হিন্দুকে-এর পরিণতি ভয়ঙ্কর হতে পারে। খুনীরা সংখ্যালঘু হয়ে সংখ্যাগরিষ্ঠের এক সদস্যকে হত্যা করতে দ্বিধা করেনি! এই মুহূর্তে আগুনের মতো দেশের সর্বত্র ছড়িয়ে পড়তে পারে হিন্দু-মুসলমান দাঙ্গা। সম্ভবত এই আশঙ্কা আঁচ করে রাজস্থানে ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে, এক মাসের জন্য কার্ফিউ দেওয়া হয়েছে।

দাঙ্গা রোধ করা গেলেও অচিরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার কোনও সম্ভাবনা নেই। সাধারণ মুসলমানকে এর জন্য মূল্য দিতে হবে দীর্ঘদিন। হিন্দুদের মধ্যে মুসলিম বিদ্বেষ বাড়বেই। রাস্তাঘাটে মুসলমানরা বীতশ্রদ্ধ হিন্দু দ্বারা লাঞ্ছিত হবে আরও।

ধর্মীয় উগ্রবাদী যেমন মুসলমানের মধ্যে আছে, হিন্দুদের মধ্যেও আছে। উগ্রবাদীর সংখ্যা বাড়লে হিন্দু মুসলমান কেউই নিরাপদ নয়। ভারত যেমন হিন্দুদের জন্যও মাঝে মাঝে নিরাপদ নয়। বাংলাদেশও তেমন, মুসলমানদের জন্যও অনেক সময় নিরাপদ নয়। দাঙ্গা ফ্যাসাদ তো হিন্দু মুসলমানের কোনও উপকারে আসে না। উপকারে আসে শুধু ধড়িবাজ রাজনীতিকদের।

আসলে ধর্ম পরিচয়ের চেয়েও বড় পরিচয় আছে মানুষের। লিঙ্গবর্ণজাতবিশ্বাস নির্বিশেষে মানুষ কিন্তু দু’রকম। এক কট্টরপন্থী, আরেক উদারপন্থী। এক দল অসহিষ্ণু, আরেক দল সহিষ্ণু। এক দল অন্ধত্ব মানে, বর্বরতা মানে, আরেক দল যুক্তি মানে, প্রগতি মানে, সভ্যতা মানে। এক দল পেছনে যেতে চায়, আরেক দল সামনে। এক দল ধ্বংস চায়, আরেক দল নির্মাণ। এক দল ব্যক্তি স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না, আরেক দল করে। সংঘর্ষ আসলে এই দুই দলে। হিন্দু মুসলমানে সত্যিকার কোনও ভেদ নেই। তারা একই জনগোষ্ঠী। একই অঞ্চলের সংস্কৃতি তাদের, ধর্মের রূপকথাগুলো শুধু ভিন্ন। হিন্দুদের রামায়ণও তো একেকটি অঞ্চলে ভিন্ন, তাদের ভগবানও একেক অঞ্চলে ভিন্ন। এই ভিন্নতার কারণে বিভাজন বাড়ে না। বিভাজন আগাগোড়াই রাজনৈতিক। দেশভাগ দিয়ে শুরু হয়েছে, আজও এই বিভাজন চলছে। বিভাজনের কারণে ঘৃণা জন্মাচ্ছে, ঘৃণা এতটাই প্রবল যে, মানুষের প্রাণ হরণ করতে দ্বিধা করছে না।

৩. পাকিস্তানের সিন্ধু অঞ্চল থেকে এক হিন্দু বালককে অপহরণ করা হয়েছে গতকাল। এমন অপহরণ নতুন কিছু নয়। অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি করা হয়। হিন্দু মেয়েদের প্রায়ই অপহরণ করার পর ধর্মান্তরিত করে বিয়ে করে মুসলমান লোকেরা।

হিন্দুদের সঙ্গে এমনই করতে পারে, যেহেতু হিন্দুরা সংখ্যালঘু, দুর্বল। সংখ্যালঘু এবং দুর্বলের ওপর অত্যাচার করলে বেশির ভাগ সময় সরকার দেখেও না দেখার ভান করে। আসলে হিন্দু বা মুসলমান কেউই কোথাও সংখ্যালঘু নয়। সত্যিকার সংখ্যালঘু তারাই যারা সমাজকে সুস্থ করতে নিজের আহার নিদ্রা স্বার্থ বিসর্জন দেয়। সত্যিকার সংখ্যালঘু তারাই, যারা উদার, সহিষ্ণু, যুক্তিবাদি, মানববাদি, মুক্তচিন্তক এবং বিজ্ঞানমনস্ক। তাদের বিরুদ্ধে সব ধর্মের উগ্রবাদিরাই খড়গহস্ত।

লেখক : নির্বাসিত লেখিকা।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১২:৩৬ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২

nypratidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর...

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০  

Editor : Naem Nizam

Executive Editor : Lovlu Ansar