সোমবার ২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মিশিগানে বাংলাদেশি ফেস্টিভ্যালে জেমসে মেতেছিলেন নতুন প্রজন্মের আমেরিকানরাও

যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি   |   বুধবার, ০২ আগস্ট ২০২৩ | প্রিন্ট  

মিশিগানে বাংলাদেশি ফেস্টিভ্যালে জেমসে মেতেছিলেন নতুন প্রজন্মের আমেরিকানরাও

নগর বাউল জেমসের গিটারের সুর ও গানে মেতে উঠেন মিশিগানে বসবাবাসরত নতুন প্রজন্মের আমেরিকানসহ প্রবাসী বাংলাদেশীরা। দর্শক ও শ্রোতাদের বাধভাঙ্গা উল্লাসে প্রায় ২০ হাজার দর্শকের উপস্থিতিতে মুখরিত হয়ে ওঠে ডেট্রয়েট সিটির বাংলা টাউন খ্যাত জেইন ফিল্ডের মেলা প্রাঙ্গণ।

৩ দিনব্যাপী ‘২২তম নর্থ আমেরিকা বাংলাদেশি ফেস্টিভ্যাল’র শেষদিন ছিল ৩০ জুলাই। দুপুর থেকেই দর্শক- শ্রোতা আসতে থাকেন মেলা প্রাঙ্গনে। একটা সময় বাংলাদেশ এ্যভিনিউ খ্যাত কনান্ট- ডেভিসন রোডের ট্রাফিক ব্যবস্থা দুর্বল হয়ে পড়ে। ট্রাফিক জ্যাম সরাতে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের হিমশিম পোহাতে হয় বলে জানান মিশিগানের সাংবাদিক আশিক রহমান।

সময় যত গড়াতে থাকে বাংলাদেশীদের আগমন ততই বাড়তে থাকে। আয়োজকদের ঘোষণা অনুযায়ী বিকাল ৬ টায় নগর বাউল জেমস’র আসার কথা থাকলেও তীর্থের কাকের মতো অপেক্ষা করেন প্রিয় শিল্পীর গান শুনতে ও একনজর দেখতে।

অভিনেত্রি রীচি সোলায়মান ও শারমিনা সিরাজ সোনিয়া ব্যান্ডের গুরুর নাম উচ্চারন করার সাথে সাথে শুরু হয় দর্শকদের তুমুল করতালি। শেষ পর্যন্ত রাত ১০ টায় স্টেজে আসেন গামছা পরিহিত বাবড়ি দোলানো চুলের বাহারে সজ্জিত জেমস।Michigan-james-3

জেমসের মিশিগান আগমনে নতুন প্রজন্মের বাংলাদেশিদের মধ্যে ছিল উন্মাদনা। জেমসের আমেরিকা সফরের সময় কয়েকটি কনসার্ট হলেও মিশিগানেই হলো সর্বশেষ এবং উন্মুক্ত কনসার্ট। এই কনসার্টে মিশিগান ছাড়াও ওহাইও, শিকাগো (ইলিনয়স), নিউজার্সি এবং কানাডা থেকে হাজারো বাংলাদেশী জড়ো হন প্রিয় শিল্পীর গান শুনতে।

মাথায় গামছা বেধে গিটার হাতে সুর তুলতেই পুরো মাঠ জুড়ে ছিল দর্শকদের শুনশান নিরবতা। প্রথম গান কবিতা, শুরু হয় নতুন প্রজন্মের নাচ ও গুরুর সাথে কন্ঠ মেলানো। দর্শকদের অনুরোধে একে একে অনেকগুলো জনপ্রিয় গান পরিবেশন করেন এই তারকা শিল্পী। উচ্ছ্বসিত দর্শক শ্রোতার জন্য নিজের ভালবাসার বার্তা দেন এভাবেই ‘উম্মা উম্মা’।

মেলায় দেখতে আসা দর্শকরা প্রিয় শিল্পীর গান শুনে অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন। এক নারী ভক্ত জানান, জেমসের অনেক গান শুনেছেন, জীবনে কখনো সরাসরি দেখননি। মেলায় প্রিয় জেমস কে কাছে থেকে দেখা ছিল স্বপ্নের মতো । মেলার শেষ দিনে পারফর্ম করেন আরেক তারকা রিজিয়া পারভিন। নিজেদের এক এক গান পরিবেশনায় দর্শকরা নেচে গেয়ে আনন্দে মাতেন। পৃথা দেব, রিয়া রহমান, প্রেমা রহমান, শফি’র গানে মাতোয়ারা ছিলেন কয়েক হাজার দর্শক। এমনকি মিশিগানের স্থানীয় শিল্পী এ আর রহমানের গান ছিল অনবদ্য।

বাঙালির প্রাণের এ মেলায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী মালিকাধীন একমাত্র ইউনিভার্সিটি ‘ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটি অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি’র চ্যান্সেলর আবু বকর হানিপ। তিনি বহুজাতিক এ সমাজে বাঙালি সংস্কৃতির ফল্গুধারা প্রবাহিত রাখতে এ ধরনের আয়োজনের গুরুত্ব অপরিসীম বলে মন্তব্য করেন। বিনোদনের পাশাপাশি বিশুদ্ধ সংস্কৃতির আবহে নতুন প্রজন্মের উচ্ছাসের এই বার্তা গোটা আমেরিকায় বাঙালি কম্যুনিটিকেও আপ্লুত করবে বলে উল্লেখ করেন বিশিষ্ট সমাজসেবক আবুবকর হানিপ। ডেট্রয়েট সিটি কাউন্সিলর স্কাট বেনসন, বেপাক এর সভাপতি এবং বিশিষ্ট ব্যবসায়ী এহসান তাকবিম ববি সহ কমিউনিটির নেতৃবৃন্দও এ সময় বক্তব্য রাখেন। মেলায় সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয় চ্যান্সেলর আবুবকর হানিপকে দুই দশকের অধিক সময় যাবত কম্যুনিটির কর্মঠ-মেধাবীদেরকে কোর্স প্রদানের মাধ্যমে উচ্চ বেতনে চাকরি পাওয়ার পথ সুগম করার জন্য। পিপুলএনটেকের সেই কর্মকান্ডের ধারাবাহিকতায় নিজ মালিকানাধীন ইউনিভার্সিটির মাধ্যমেও কম্যুনিটির পাশে দাঁড়িয়েছেন চ্যান্সেলর আবুবকর হানিপ। এজন্য সকলে বিপুল করতালিতে তাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন।

মেলায় ছিল দেশীয় কাপড়ের দোকান এবং খাবারের স্টল। দর্শকদের প্রত্যাশা প্রতিবছরই যেন এমন আয়োজন হয়। আয়োজক আকিকুল হক শামীম, এসএনএস হোম লোনের কর্ণধার নাসির সবুজ, খালেদ আহমদ,সাকের উদ্দিন সাদেক সহ কমিটির সকল সদস্যকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। এমনকি আয়োজকরাও ঘোষণা দিয়েছেন, আগামী ২৩ তম মেলাটি হবে আরো জাঁকজমকপূর্ণ এবং আকর্ষণীয়।

Facebook Comments Box
advertisement

Posted ১২:৩০ অপরাহ্ণ | বুধবার, ০২ আগস্ট ২০২৩

nypratidin.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর...

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  

Editor : Naem Nizam

Executive Editor : Lovlu Ansar